1. newsroom@saradesh.net : News Room : News Room
  2. saradesh.net@gmail.com : saradesh :
কোপার ফাইনালে ব্রাজিল - সারাদেশ.নেট
বৃহস্পতিবার, ০৫ অগাস্ট ২০২১, ০১:২৪ অপরাহ্ন

কোপার ফাইনালে ব্রাজিল

  • Update Time : মঙ্গলবার, ৬ জুলাই, ২০২১

স্পোর্টস ডেস্ক :
পেরুকে হারিয়ে কোপার ফাইনালে পৌঁছে গেলো ব্রাজিল।

ব্রাজিল প্রথমার্ধে খেলল ফেভারিটের মতোই। আগের ম্যাচে জয়ের দুই কুশীলবই গড়ে দিলেন ব্রাজিলের ভাগ্য। কোপা আমেরিকার সেমিফাইনালে নেইমারের বাড়ানো বলে লুকাস পাকেতার লক্ষ্যভেদ। দ্বিতীয়ার্ধে কিছুক্ষণ ধুঁকল বটে, কিন্তু হজম করেনি কোনো গোল। তাতে পেরুকে ১-০ গোলে হারিয়েছে সেলেসাওরা। তাতে টানা দ্বিতীয়বারের মতো উঠে গেছে প্রতিযোগিতার ফাইনালেও।

ম্যাচের প্রথম থেকেই পেরুর রক্ষণে কড়া নাড়ছিলেন নেইমার, এভারটনরা। ৭ মিনিটে সুযোগও পেয়েছিলেন। কিন্তু রিশার্লিসনের সে কাটব্যাক থেকে শটটা জোরাল ছিল না তেমন, সহজ সেভে পেরুকে বিপদমুক্ত করেন গোলরক্ষক গালেসে।

১৯ মিনিটে প্রথম বড় সুযোগটা পায় ব্রাজিল। সে যাত্রায় গোলরক্ষক গালেসের কল্যাণে গোল হজম করেনি পেরু। ক্যাসেমিরোর থ্রু বল থেকে লুকাস পাকেতা বাইলাইনের কাছে পেয়ে যান বল, তার কাটব্যাক থেকে নেইমারের জোরালো শট ঠেকিয়ে দেন গালেসে। রিশার্লিসনের ফিরতি চেষ্টাটাও এরপর শেষ হয়েছে গালেসের সেভ থেকেই।

তবে ম্যাচের অচলাবস্থা ভাঙে খেলার ৩৪ মিনিটে। নেইমার দারুণ এক আক্রমণের শেষ দিকে ঢুকে পড়েন পেরু রক্ষণে। ততক্ষণে চার পেরুভিয়ান ডিফেন্ডার ছেঁকে ধরেছেন তাকে, নেইমার বল হারাননি তাতে, দারুণ ক্লোজ কন্ট্রোলে বল দখলে রেখে শেষে বাড়ান সতীর্থ লুকাস পাকেতাকে। তার প্রথম ছোঁয়াতেই করা দারুণ শটে ব্রাজিল এগিয়ে যায় ১-০ গোলে। এই সবেধন নীলমণি গোলে এগিয়েই বিরতিতে গেছে কোচ তিতের শিষ্যরা।

ম্যাচের চিত্র বদলে গেল বিরতির পর। প্রথমার্ধে বিবর্ণ পেরু আক্রমণভাগে রঙ ফিরল যেন দ্বিতীয়ার্ধে। চলতি আসরে যিনি পেরুর হয়ে গোল করেছেন সবচেয়ে বেশি সেই জিয়ানলুকা লাপাদুলাই যেন ছিলেন সবচেয়ে বেশি সপ্রতিভ। ৪৮ মিনিটে ডান প্রান্ত থেকে কাট ইন করে ঢুকলেন তিনি। করলেন জোরালো এক শট, এডারসনের দারুণ সেভ সে যাত্রায় ম্যাচে সমতা ফেরানো থেকে ঠেকায় পেরুকে।

এর মিনিট দুয়েক পর লাপাদুলার ছেড়ে দেওয়া বল থেকে রাজিয়েল গার্সিয়ার শট লক্ষ্যভ্রষ্ট হয়। তবে ব্রাজিল রক্ষণে পেরুর ত্রাসটা স্পষ্ট হয়ে গিয়েছিল ততক্ষণে। ৬০ মিনিটে আবারও সেই রাজিয়েলের শট, এবার সেটা গেল লক্ষ্যেই, তবে গোলমুখে থাকা এডারসন রুটিন সেভ দিয়ে গোল হজম করা থেকে রক্ষা করেন ব্রাজিলকে।

এরপর ঘাত প্রতিঘাতে ম্যাচ এগিয়েছে। সময় গড়ানোর সঙ্গে সঙ্গে দুই দলের রক্ষণই এরপর পোক্ত হয়েছে পাল্লা দিয়ে, তবে ক্ষুরধার আক্রমণেরও যেন অভাব ছিল বেশ। তাতে গোলের দেখা আর পায়নি কোনো দল। কোনো রকম অঘটন ছাড়াই ব্রাজিল নিশ্চিত করে ফাইনাল।

দ্বিতীয়ার্ধের পারফর্ম্যান্স কোচ তিতেকে কিছুটা ভাবনায় রাখবে বটে। তবে একটা তথ্য তিতেকে তো বটেই, আশা দেখাতে পারে খেলোয়াড় থেকে শুরু করে সমর্থকদেরও।

এর আগে ব্রাজিল আর পেরু দুইবার মুখোমুখি হয়েছিল সেমিফাইনালে। ১৯৭৫ এ জিতেছিল পেরু আর ১৯৯৭ এ শেষ হাসি ছিল ব্রাজিলের। সে দুই আসরের শিরোপাজয়ী দল ছিল ব্রাজিল-পেরু সেমিফাইনালে জেতা দলই। আগের দুইবার হয়েছিল, তবে কি এবারও…. তা দেখার অপেক্ষায় ফুটবল বিশ্ব।

এমএম/কেকে//

Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *